aimatropawakhabor
শরীয়তপুর, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪ইং
রাত
শরীয়তপুর, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪ইং
aimatropawakhabor
শিরোনাম

সোনার জিলাপিতে আসলে কী ছিল, খাওয়া ক্ষতিকর না উপকারী

২৩-এপ্রিল-২০২৩, রাত ১১:০৮      

itpoka

ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেল হইচই ফেলে দিয়েছিল সোনায় মোড়ানো জিলাপি বিক্রি করে। ৫ এপ্রিল ২০২৩ রমজানের মধ্যে প্রথম আলোর খবরে বলা হয়, ‘প্রতি কেজি জিলাপির দাম ২০ হাজার টাকা! না, ভুল শোনেননি। বিশেষ এই জিলাপি ২৪ ক্যারেটের সোনা দিয়ে মোড়ানো। সে জন্যই এত দাম। রাজধানীর ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে বিক্রি হচ্ছে বিশেষ ধরনের এ সোনার প্রলেপ দেওয়া জিলাপি।

‌‘রমজান উপলক্ষে এই জিলাপি তৈরি করেছে ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেল কর্তৃপক্ষ। সাধারণ গ্রাহকদের জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে আজ বুধবার থেকে এটি বিক্রি শুরু হয়েছে। প্রতি কেজি জিলাপিতে ২৪ ক্যারেটের খাবার উপযোগী সোনার ২০ থেকে ২২টি লিফ বা পাতলা পাত থাকবে। একজন গ্রাহক ন্যূনতম ২৫০ গ্রাম জিলাপি কিনতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে দাম পড়বে পাঁচ হাজার টাকা

‌‘আজ সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল ঢাকার ফেসবুক পেজে জানানো হয়, “গোল্ড জিলাপি সোল্ড আউট”। অর্থাৎ, সোনার আবরণে ঢাকা জিলাপি বিক্রি শেষ হয়েছে।’ (সোনায় মোড়ানো ২০ হাজার টাকা কেজির জিলাপির অর্ডার নেওয়া বন্ধ)

সোনায় মোড়ানো জিলাপিতে আসলে কী থাকে? এ প্রশ্ন করা হয়েছিল হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের বিক্রয় এবং বিপণন বিভাগের পরিচালক রেজওয়ান মারুফকে। তিনি জানান, এই জিলাপিতে ২৪ ক্যারেট এডিবল গোল্ড লিফ বা খাওয়ার উপযোগী সোনার পাত থাকে। এই গোল্ড লিফ ঢাকায় হোটেলটির নিয়মিত সরবরাহকারীরাই জোগান দিয়েছেন বলে জানান হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল ঢাকার মহাব্যবস্থাপক অশ্বিনী নায়ার। মোট কত পরিমাণে গোল্ড লিফ বা সোনার পাত ব্যবহার করা হয়েছে এবং মোট কত কেজি সোনা মোড়ানো জিলাপি বিক্রি করা হয়েছে, এ প্রশ্নের উত্তর কর্তৃপক্ষ দিতে চাননি। অশ্বিনী রায় বলেন, এই জিলাপি বানানোর উদ্দেশ্য ছিল হোটেলের রেস্টুরেন্টের এবং খাবারের ইতিবাচক প্রচার করা। তাতে তাঁরা সফল হয়েছেন। এ জন্য পরে আর এই জিলাপি বানানোর সোনার পাত সংগ্রহের জন্য তাঁরা আর চেষ্টা করেননি।

‘রাফসান দ্য ছোটভাই’ নামের ইউটিউব চ্যানেলে একটা ভিডিও দেখানো হয়েছে. যাতে ইন্টারকন্টিনেন্টালের সোনার জিলাপি কেনা হয়। পরে সেই জিলাপি একটা জুয়েলারি দোকানে গিয়ে কম্পিউটারে পরীক্ষা করা হয়। এই ভিডিওতে দেখানো হয়েছে, এই জিলিপির পাতগুলো সত্যিকারের সোনা বলে প্রমাণিত হয়েছে। তবে ইউটিউব ভিডিওর দাবি, এগুলো ১৮ ক্যারেটের।

খাবার উপযোগী সোনা কি স্বাস্থ্যের জন্য ভালো? নাকি ক্ষতিকর? টাইমস অব ইন্ডিয়া ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০-এর এক প্রতিবেদনে বলছে, খাওয়ার সোনা শুধু সৌন্দর্য বাড়ায় না, এটা শরীরের জন্যও উপকারী। ইট দিস ডট কম নামের একটা ওয়েবসাইট সোনা খাওয়ার ফলে বাতের ব্যথায় উপকার হয় বলে জানানো হয়েছে। বারনাবাস ডট কম নামের একটা সাইটে সোনার পাত মোড়ানো খাবার নিয়ে বৈজ্ঞানিক আলোচনা করা হয়েছে। তাতে জানানো হয়, গয়নার সোনা আর খাওয়ার সোনা আলাদা। খাওয়ার সোনার কোনো অপকারিতা নেই। কারণ, সোনা অ্যাসিডে গলে না, এটা হজম হবে না, শরীর থেকে বেরিয়ে যাবে। কাজেই এর কোনো উপকারিতাও নেই, আবার এটি শরীরের জন্য ক্ষতিকারকও নয়। যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্যনিরাপত্তা কর্তৃপক্ষ এফডিএ সোনার পাত খাওয়ার উপযোগী, নাকি ক্ষতিকর—এ নিয়ে কিছু বলেনি। ইউরোপের খাদ্যনিরাপত্তা কর্তৃপক্ষ খাওয়ার উপযোগী সোনা নিয়ে একটা বিশেষ নিয়ম চালু করেছে, যার নাম ই-১৭৫। এতে কত ওজনের মানবদেহে কতটুকুন সোনা খাওয়া নিরাপদ, তা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। এই বিধি ১৯৭৫ সালে প্রথমে করা হয়, ২০১৬ সালে তা পুনর্নির্ধারণ করা হয়!


বাংলাদেশ

সর্বশেষ খবর

সর্বাধিক পঠিত

আর্কাইভস | শরীয়তপুর পোষ্ট